হোমপেজ অপরাধ ১০ বছরেও বিচার পায়নি গৌতমের পরিবার

১০ বছরেও বিচার পায়নি গৌতমের পরিবার

186
0

খায়রুল আলম রফিক : দেখতে দেখতে ১০টি বছর কেটে গেছে। আজো হয়নি পুলিশ কর্মকর্তা গৌতম হত্যার বিচার। এখনো বিচারের আশা করেন গৌতমের পরিবার। ২০১০ সালের ১৯ এপ্রিল সন্ত্রাসীরা উপপরিদর্শক (এসআই) গৌতমকে গুলি করে হত্যা করে। ঘটনার দশ বছর হয়ে গেলেও সুষ্ঠু বিচার পায়নি এই পুলিশ কর্মকর্তার পরিবার। আজ ১৯ এপ্রিল পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) গৌতম রায় হত্যার দশ বছর। নিহত গৌতমের পরিবার এ হত্যার সঠিক তদন্ত ও সুষ্ঠু বিচারের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।
নিহতের পরিবার বলছে, গৌতম রায়ের বাড়ি ময়মনসিংহের গৌরীপুরের শ্যামগঞ্জে। তিনি রাজধানী ঢাকার বংশাল থানায় পুলিশের এসআই পদে কর্মরত ছিলেন। পরিবার নিয়ে থাকতেন ওয়ারিতে। ২০১০ সালের ১৯ এপ্রিল পেশাগত কাজ শেষে বাসায় ফেরার পথে ধোলাইখালের মোহন সাহা স্ট্রিটের আশরাফ ইলেকট্রনিক্সের সামনে সন্ত্রাসীরা গৌতমকে লক্ষ্য করে একাধিক গুলি করে। পরে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। পরবর্তীতে এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা করে।

গৌতমের ছেলে গৌরব রায় ঝলক বলেন, বাবা হত্যার বিচারের আশায় পরিবারের সদস্যরা থানা-পুলিশ, রাজনৈতিক নেতাদের কাছে কম ধর্ণা দেননি। কিন্তু সবাই শুধু আশ্বাস দিয়েছেন। বিচারের আশায় থাকতে থাকতে আমার দাদা-দাদু স্বর্গীয় হয়েছেন। কিন্তু বিচার পাইনি। এখন সুষ্ঠু বিচারের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে দাবি জানাচ্ছি।

গৌতম রায়ের ছোট ভাই সাংবাদিক তিলক রায় বলেন, এটি একটি পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড। যে পিস্তল দিয়ে দাদাকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে, সেই আগ্নেয়াস্ত্রটি পুলিশ আজও উদ্ধার করতে পারেনি। দুজন প্রত্যক্ষদর্শী সাক্ষী থাকার পরেও আসল অপরাধী চক্রকে পুলিশ চিহ্নিত করতে পারেনি। তাই আমরা অভিযোগপত্র নিয়ে আপত্তি তুলেছিলাম। যেহেতু আমরা মামলার বাদী নই, তাই পত্রিকার মাধ্যমেও এ আপত্তি দিয়েছিলাম। অভিযোগপত্র দেওয়ার আগে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করতেন। এখন আর কেউ আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেন না। যতটুকু শুনেছি, এ মামলায় কয়েকজনকে আটক করা হয়েছিল। তবে তাদের সবাই জামিনে আছে। এখন আর মামলার অগ্রগতি সম্পর্কে কিছুই জানি না।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে