হোমপেজ আন্তর্জাতিক সবচেয়ে অনুপ্রেরণা দিয়ে আমাকে ক্ষমতায়ন করেছেন হযরত মুহাম্মদ (সা.): ব্রিটিশ এমপি

সবচেয়ে অনুপ্রেরণা দিয়ে আমাকে ক্ষমতায়ন করেছেন হযরত মুহাম্মদ (সা.): ব্রিটিশ এমপি

151
0

একজন ব্রিটিশ মুসলিম নারী হিসেবে নিজের পায়ে দাঁড়াতে যে ব্যক্তি আমাকে সবচেয়ে বেশি অনুপ্রেরণা ও উৎসাহ দিয়েছেন এবং আমাকে ক্ষমতায়ন করেছেন তিনি হলেন হযরত মুহাম্মদ (সা.)- কথাগুলো বলেছেন যুক্তরাজ্যের নারী ও সমতা বিষয়ক ছায়ামন্ত্রী নাজ শাহ। নাজ শাহ ব্রিটিশ লেবার পার্টির একজন রাজনীতিবিদ ও ব্র্যাডফোর্ড ওয়েস্টের এমপি। আন্তর্জাতিক নারী দিবসের এক আলোচনায় অংশ নিয়ে হাউস অব কমন্সে তিনি এ মন্তব্য করেন।

১৯৩৫ সালে যুক্তরাষ্ট্রের সুপ্রিম কোর্ট হযরত মুহাম্মদ (সা.)-কে বিশ্বের সেরা বিধানদাতাদের একজন আখ্যা দেয়। এমপি নাজ শাহ এ বিষয়টিও তার বক্তব্যে টেনে আনেন। তিনি বলেন, ‘হযরত মুহাম্মদই একমাত্র ব্যক্তি যার কাছ থেকে আমি অনুপ্রেরণা পেয়েছি।’ ব্র্যাডফোর্ড ওয়েস্ট থেকে নির্বাচিত এই এমপি বলেন, ‘তিনি (হযরত মুহাম্মদ) এমন একটা সময় পৃথিবীতে এসেছিলেন, যখন নারীদের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অধিকার থেকে বঞ্চিত করা হতো।’ সময়ের পরিক্রমায় পরবর্তীতে তিনি এমন একটি সমাজ উপহার দেন, সেখানে শোষিত, বঞ্চিত ও হত্যাকাণ্ডের শিকার (শিশুসন্তান মেয়ে হলে জীবন্ত পুঁতে ফেলা হতো) নারীরা শুধু তাদের বেঁচে থাকার অধিকারই পায়নি; সম্পত্তি, বিবাহ, উত্তরাধিকার, ভোট প্রদান, সম্মান, মর্যাদা এবং স্বাধীনতা-সবই পেয়েছে।’ মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)-এর পাশাপাশি এক ডজন নারীকেও কৃতজ্ঞাচিত্তে স্মরণ করেন হাউস অব কমন্সে প্রতিনিধিত্বকারী নাজ শাহ। তিনি বলেন, মেরি ওলস্টোনক্র্যাফ্ট (ইংরেজ লেখক ও দার্শনিক), এমেলিন পানখুর্স্ট (ইংরেজ রাজনীতিবিদ), রোজা পার্ক (অধিকার কর্মী), বেনজির ভুট্টো (পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী) , অপরাহ উইনফ্রে (অভিনেত্রী ও উপস্থাপিকা)-এরা শুধু সমাজে সমতা প্রতিষ্ঠার জন্য লড়াই করেননি; অনুপ্রেরণা ও উৎসাহ দিয়েছন। এখানেই শেষ নয়, নারীদের পাশাপাশি পুরুষরাও তাদের দেখে অনুপ্রাণিত হচ্ছেন। ১৮৫৭ সালের ৮ মার্চ মজুরি-বৈষম্য, কর্মঘণ্টা নির্ধারণ এবং কর্মক্ষেত্রে বৈরী পরিবেশের প্রতিবাদ করেন যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের সুতা কারখানার একদল শ্রমজীবী নারী। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে তাদের ওপর দমন-পীড়ন চালায় মালিকপক্ষ। নানা ঘটনার পর ১৯০৮ সালে জার্মান সমাজতান্ত্রিক নেত্রী ও রাজনীতিবিদ ক্লারা জেটকিনের নেতৃত্বে প্রথম নারী সম্মেলন করা হয়। এরই ধারাবাহিকতায় ১৯৭৫ সাল থেকে জাতিসংঘ দিনটি নারী দিবস হিসেবে পালন করছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে