হোমপেজ আইন ও আদালত মিন্নির কাছে জবাব চাইলো আদালত, জামিন কেন বাতিল হবে না

মিন্নির কাছে জবাব চাইলো আদালত, জামিন কেন বাতিল হবে না

132
0

নিউজ ডেস্ক

বরগুনার আলোচিত রিফাত হত্যা মামলার আসামি আয়শা সিদ্দিকা মিন্নির জামিন কেন বাতিল হবে না তার জবাব চেয়েছেন আদালত। রাষ্ট্রপক্ষের এক আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার (৯ জানুয়ারি) বরগুনা দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. আছাদুজ্জামান এই আদেশ দেন। সকালে বরগুনা জেলা কারাগারে থাকা মামলার প্রাপ্তবয়স্ক আট আসামিকে আদালতে হাজির করা হয়। এছাড়াও স্বজনদের সঙ্গে আদালতে হাজির হন এ মামলায় জামিনে থাকা নিহত রিফাতের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নি।

এ বিষয়ে পিপি ভুবন চন্দ্র হাওলাদার বলেন, ‘সাক্ষীদের হুমকি দেওয়ার অভিযোগে মিন্নির জামিন বাতিলের আবেদন করেছিল রাষ্ট্রপক্ষ। শুনানি শেষে মিন্নির জামিন কেন বাতিল হবে না, তা জানতে চেয়ে মিন্নিকে ১৪ তারিখের মধ্যে আইনজীবীর মাধ্যমে জবাব দিতে বলা হয়েছে।’ মিন্নির পক্ষের আইনজীবী মাহাবুবুল বারী আসলাম বলেন, ‘যে অভিযোগে মিন্নির জামিন বাতিলের আবেদন করা হয়েছে, সেটা হাস্যকর ও গল্পের মতো। আমরা আইনগতভাবেই এর জবাব দেবো।’

এ মামলায় ৭৫ জন সাক্ষীর মধ্যে বুধ ও বৃহস্পতিবার দুদিনে মোট চার জনের সাক্ষী নেওয়া হয়। তাদের জেরাও সমাপ্ত করেছেন আসামি পক্ষের সাত জন আইনজীবী। সোমবার (১৩ জানুয়ারি) সকালে আবার তিন জন সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ করবে আদালত। ১ জানুয়ারি মিন্নিসহ ১০ জন আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়।

বৃহস্পতিবার রিফাতের মা ডেইজি বেগম, বোন ইসরাত জাহান মৌ ও চাচাতো বোন নুসরাত জাহান অনন্যার সাক্ষ্য গ্রহণ করেছেন আদালত। সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে আসামিপক্ষের আইনজীবীরা তাদের জেরাও করেছেন। রিফাতের মা ডেইজী বেগম ছেলের হত্যার পেছনে মিন্নিকে দায়ী করে মিন্নিসহ সব আসামিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রার্থনা করেন। তিনি আদালতকে বলেন, ‘ঘটনার দিন সকালে মিন্নির ফোন কলের পর রিফাত তার কাছ থেকে পাঁচশ টাকা নিয়ে ঘর থেকে বের হয়ে হয়।’ এছাড়া রিফাতের বোন ইসরাত জাহান মৌ ও চাচাতো বোন অনন্যাও মিন্নিকে রিফাত হত্যায় মূল ভূমিকা পালনকারী হিসেবে আদালতের কাছে সাক্ষ্য দেন। মৌ বলেন, ‘নিহত নয়ন বন্ডের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কের কারণে রিফাতের সঙ্গে মিন্নির প্রায়ই ঝগড়া হতো। এর জেরে নয়ন বন্ড ও রিফাত ফরাজী বাহিনীর সঙ্গে ষড়যন্ত্র করে আমার ভাইকে হত্যা করা হয়।’ তিনি আদালতের কাছে তার একমাত্র ভাই রিফাত হত্যার ন্যায় বিচার প্রার্থনা করেন।।

১ সেপ্টেম্বর রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় রিফাতের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নিসহ ২৪ জনের বিরুদ্ধে বরগুনার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে দুই ভাগে বিভক্ত অভিযোগপত্র (চার্জশিট) দেয় পুলিশ। একই সঙ্গে রিফাত হত্যা মামলার এক নম্বর আসামি নয়ন বন্ড ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হওয়ায় তাকে মামলা থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়।

প্রসঙ্গত, ২৬ জুন সকাল সোয়া ১০টার দিকে বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে সন্ত্রাসীরা রিফাত শরীফকে প্রকাশ্যে রামদা দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে। পরে গুরুতর আহত রিফাতকে ওইদিনই বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে বিকালে তিনি মারা যান। এ ঘটনায় রিফাতের বাবা দুলাল শরীফ বাদী হয়ে ১২ জনের নামসহ পাঁচ-ছয় জনকে অজ্ঞাত আসামি করে বরগুনা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এ মামলার চার্জশিটভুক্ত প্রাপ্তবয়স্ক আসামি মো. মুসা এখনও পলাতক।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে