সোমবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২১, ১২:১২ পূর্বাহ্ন

‘ক্ষমতার সাথে ক্ষমতার লড়াই!

‘ক্ষমতার সাথে ক্ষমতার লড়াই!

খায়রুল আলম রফিক :
র‌্যাবের ভাষ্যমতে, পুরান ঢাকার সবচেয়ে বড় ভবন আশিক টাওয়ারের ছাদে ছিলো ইরফান সেলিমের টর্চার সেল! সেখানে পাওয়া যায় মানুষের হাড়, উদ্ধার করা হয় হ্যান্ডকাফ, দড়ি, চাকুসহ নানা সামগ্রী। এছাড়া সংসদ সদস্য হাজী সেলিমের বাড়ির পাশে চকবাজারে আরও একটি টর্চার সেল রয়েছে বলেও র‌্যাবের দাবি।

রাজধানীর চকবাজারের দেবিদাস ঘাট লেনে হাজী সেলিমের বাসায় অভিযান চালিয়েও ‘টর্চার সেল’-এর সন্ধান মিলেছে। দুটি অবৈধ আগ্নেয়াস্ত্র, মদ, হাতকড়া, (ভার্চুয়াল প্রাইভেট সার্ভার) যন্ত্র, ৩৮টি ওয়াকিটকি, দেহরক্ষীর কাছ থেকে ৪০০ পিস ইয়াবা এবং ড্রোনসহ বিভিন্ন ডিভাইস উদ্ধার করা হয়।

এমন খবর প্রকাশে কাউন্সিলর পদ থেকে ইরফান সেলিমকে বরখাস্তের সিদ্ধান্ত আসে। সেলিমপুত্রকে নেয়া হয় কারাগারে। ডিএমপি কমিশনার ঘোষণা দেন ইরফান সেলিমের ঘটনায় কেউ প্রভাব খাটাতে পারবে না।

এমন নানা ঘটনার পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পুরনো রূপ গরম হয়ে গেছে। এই ঘটনা টক অব দ্য কান্ট্রি। উত্তপ্ত ব্লগ, ফেসবুক, টুইটারসহ নানা মাধ্যম। ঝড় বইছে প্রতিবাদ-বিতর্কের। অনেকে এটিকে ক্ষমতার সাথে ক্ষমতার লড়াইও বলছেন।

সৈয়দ লিটু নামের একজন ফেসবুকে মন্তব্য করে লিখেন, ‘হাজী সেলিম সাহেবের ছেলেকে গ্রেপ্তার বা শাস্তি দেয়াতে সাধারণ মানুষের স্বস্তির কোনোই কারণ আমি দেখি না। এখানে লড়াইটা হয়েছে ক্ষমতার সাথে ক্ষমতার। হাজী সেলিম সাহেবের ছেলে যে সরকারি প্রশ্রয়ের দম্ভে একজন নৌবাহিনীর অফিসারকে অপদস্থ করার সাহস করেছেন, একজন নৌবাহিনীর অফিসারও তার রাষ্ট্রীয় চাকরির পদ-পদবীর জোরে ক্ষমতার প্রতিযোগিতায় বিজয়ী হয়ে প্রতিশোধ নিতে পেরেছেন।

এখানে একজন অপরাধীর বিচার হয়নি বরং একজন অপরাধীর ক্ষমতা আর একজন ব্যক্তিগতভাবে অধিক প্রভাবশালীর ক্ষমতার কাছে তাৎক্ষণিকভাবে হেরে গেছে। সামাজিক সুবিচার বা আইনের ন্যায়বিচারের এখানে কোনো ভূমিকা ছিলো না।’

ফাইজুন নাহার লিনা নামের আরেকজন মন্তব্য করেন, ‘হাজী সেলিম ও তার ছেলে এরফান আওয়ামী লীগের কেউ না! আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতাদের থেকে এমন বক্তব্য শুনার অপেক্ষায় জাতি…।’

আবদুর রহমান নামের একজন লিখেন, ‘হাজী সেলিমরা যেসব ক্ষমতাহীন মানুষের শতশত জমি দখল করেছে, তাদের টর্চার সেলে যেসব ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা সর্বস্ব খুইয়েছে, তাদের অবৈধ মদের আখড়ায় যেসব মায়ের সন্তানরা তারুণ্য হারিয়েছে আমরা তাদের পক্ষে প্রশাসনের স্বপ্রণোদিত পদক্ষেপ চাই।’

রিফাত সিদ্দিকী নামের আরেকজনের মন্তব্য এমন— হাজী সেলিম বা ইরফান সেলিমকে আপনারা কেউ অমানবিক বলতে পারবেন না। কারণ তারা টর্চার সেলে নির্যাতনের পর কেউ আহত হলে দয়া দেখিয়ে স্যাভলন লাগিয়ে দিতো!

আব্দুল কাদের আরাফাত ক্ষোভ জানিয়ে বলেন, থেকে যেতো হাজী সেলিমপুত্রের জঙ্গি আস্তানা। ভাইরালের অভাবে ক্ষমতার দাপট আর বিচারহীনতায় কত বোবা কান্নায় আকাশ ভারী হয় কে জানে! এই টর্চার সেলে এতদিন কারা নির্যাতনের শিকার হয়েছে, মানুষের হাড় কিভাবে আসলো তা কখনো জানা যাবে?

আব্দুল্লাহ মুহাম্মদ লিখেন, হাজী সেলিমপুত্র এরফান সেলিমের টর্চার সেল থেকে হাড়সহ বিভিন্ন সরঞ্জামাদি উদ্ধার! কত মানুষ নির্যাতনের শিকার হয়েছে, কত মানুষের কান্নার আওয়াজ চার দেয়ালের মাঝে মিশে গেছে!

আব্দুস সালাম লিখেন, হাজী সেলিম আওয়ামী এমপি নন। হাজী সেলিম বিদ্রোহী এমপি। হাজী সেলিম বিএনপির কমিশনার ছিলো। হাসান সালেহী রম্য করে লিখেন, হাজী সেলিম সাহেবের বাসায় অভিযানের পর… প্রচুর পরিমাণে জায়নামাজ, টুপি, আতর ও তাছবিহ উদ্ধার…। নয়ন মুরাদ কবিতার ভাষায় লিখেন, যতই করুন গলাবাজি… যার যা বলুন পিছে মসনদ থেকে ফুটপাত… খুব বেশি নয় নিচে।

কাউন্সিলর পদ থেকে ইরফানকে বরখাস্তের সিদ্ধান্ত : ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) কাউন্সিলর পদ থেকে সংসদ সদস্য হাজী সেলিমের ছেলে ইরফান সেলিমকে বরখাস্তের সিদ্ধান্ত নিয়েছে স্থানীয় সরকার বিভাগ।

স্থানীয় সরকারমন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম জানিয়েছেন, গতকাল মঙ্গলবার থেকে ইরফান সেলিম বরখাস্ত, একইসঙ্গে পূর্ণাঙ্গ তদন্ত শেষে তাকে স্থায়ীভাবে বরখাস্ত করা হবে।

গতকাল সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা জানান।

মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ একটি গণতান্ত্রিক দেশ, সংবিধান ভিত্তিতে পরিচালিত। প্রধানমন্ত্রী ব্যক্তিগতভাবে খুব গুরুত্বের সাথে আইনের শাসনকে বিশ্বাস করেন। অপরাধীর পরিচয় যাই হোক না কেন, অপরাধ করলে তাকে শাস্তি পেতেই হবে। অপরাধী কোন দলের, কোন পদবিধারী এটা বিবেচনায় আনা হবে না।


Comments are closed.

© All rights reserved © 2017 24ghontanews.com
Desing & Developed BY ThemeForest