শুক্রবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২০, ০৫:০৩ পূর্বাহ্ন

আমি প্রধানমন্ত্রীর সাথে সাক্ষাত করতে চাই

আমি প্রধানমন্ত্রীর সাথে সাক্ষাত করতে চাই

খায়রুল আলম রফিক
নরসিংদী জেলার মনোহরদী উপজেলার হাফিজপুর গ্রামের বাসিন্দা পিতা- মাতা হারা প্রতিবন্ধী শিশু কাজী মোবারকের বসত বাড়ি ও জমি দখল করে বিতারিত করেছে তারই চাচাত ভাই প্রভাবশালী একটি হাই স্কুলের কেরানী কাজী মোস্তাফিজুর মাসুম। শারীরিক প্রতিবন্ধী এগার বছর বয়সের শিশু কাজী মোবারক মাত্র ৪ বছর বয়সে মাকে এবং ৬ বছর বয়সে বাবাকে হারায় । তার একমাত্র বড় ভাই হিজড়া হওয়ায় অনেক আগেই বাড়ি ঘর ছেড়ে চলে গেছে ।
কাজী মোবারক জানায়, পড়াশুনার ইচ্ছা থাকলেও বাড়ি- ঘর , জমি- জমা বেদখল হওয়ায় দুমুঠো খাবারই জোটে না । বাবা- মার মৃত্যুর পর আমার শাররিরীক অক্ষমতার সুযোগে আমার পিতার রেখে যাওয়া সম্পত্তির উপর আমার চাচাত ভাই কাজী মোস্তাফিজুর রহমান মাসুমের লোভ হয়। আমাদের জমি জবর দখল করে ভোগ করার জন্য বিভিন্ন পায়তারা শুরু করে। এক পর্যায়ে পৈত্রিক বাড়ি থেকে আমাকে উচ্ছেদ করে জমি দখল করে নেয় । বিষয়টি এলাকার চেয়ারম্যানকে জানান হলে স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গকে দিয়ে মিমাংসা করে তাদেরকে আমাদের জমিতে আসতে নিষেধ করেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে মোস্তাফিজুর রহমান মাসুম আমার বাড়িতে অনধিকার ভাবে প্রবেশ করে বাড়ি ঘর জমি দখল করে নেয় ।
এদিকে ব্যানার হাতে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে দুই দিন ধরে বিষয়টির প্রতিকার চেয়ে একাই প্রতিবাদ কর্মসূচী পালন করছে এতিম প্রতিবন্ধী এই শিশু । একটি ব্যানার হাতে নিয়ে গত বুধবার থেকে মৌন প্রতিবাদ কর্মসূচী পালন করে যাচ্ছে সে । ব্যানারে লেখা‘ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ‘ আমার বেদখলী জমি ফিরিয়ে দেন’ ঘর বানিয়ে থাকতে চাই’ । প্রতিবন্ধী এতিম শিশুটির মৌন প্রতিবাদ কর্মসূচী চলাচলরত পধচারিসহ সকলেল দৃষ্টিতে পড়ে । কাছে গিয়ে শিশুটির সাথে কেঁদেছেন অনেকেই ।
জানা যায়, মাতা কাজী আছমা খাতুন বজ্রপাতে গাছ পরে মৃত্যৃুর পর বাবা কাজী সামসু উদ্দিন শেষ ভরষা ছিল প্রতিবন্ধী শিশু কাজী মোবারকের । মায়ের গাছ চাপায় মৃত্যু তাকে বেশি অসহায় করেছে। বাবা- মা উভয়েরই মৃত্যুর পর অকূল পাথারে পড়ে যায় এগার বছর বয়সী প্রতিবন্ধী শিশু মোবারক । এরই মাঝে প্রতিবন্ধী শিশুটির বাড়ি ভিটাটুকুও বেদখল করে নিয়েছে আপন চাচাত ভাই। বেড় করে দিয়েছে বাড়ি থেকে । এরপর চারদিকে শুধুই অন্ধকার নরসিংদী জেলার মনোহরদী উপজেলার হাফিজপুর গ্রামের বাসিন্দা মোবারকের । কোথায় মিলবে আলো । গত সপ্তাহে রাজধানী আসে মোবারক মন্ত্রণালয়ের সামনে তাকে সহযোগীতায় এগিয়ে আসেন সাংবাদিক শাকিল । বিস্তারিত শুনে সাংবাদিক শাকিল প্রতিবন্ধী শিশুকে নিয়ে স্মরণাপন্ন হন শিল্পমন্ত্রী ও নরসিংদী-৪ (মনোহরদী-বেলাব) আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুনের কার্যালয়ে। সুবিচার চেয়ে মন্ত্রী বরাবর একটি লিখিত আবেদন করেন ।
মন্ত্রী আবেদনটির প্রেক্ষিতে কার্যকরী ব্যবস্থা নিতে নরসিংদী জেলা প্রশাসকের কাছে বিষয়টি সত্যতা যাচাই করে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেন। অভিযোগ , এতিম কাজী মোবারকের পৈত্রিক বসতভিভটা বেদখল করে তারই চাচাত ভাই প্রভাবশালী একটি স্কুলের কেরানী কাজী মোস্তাফিজুর রহমান মাসুম ।
জমি উদ্ধারের জন্য স্থানীয় নেতাসহ মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুরলেও কোনো প্রতিকার পায়নি মোবারক । বাড়িতে থাকলে দখলদার চাচাত ভাই কাজী মোস্তাফিজুর রহমান মাসুম ও তাঁর লোকজন কাজী মোবারকের সাথে দুর্ব্যবহার করে বাড়াবাড়ি করলে এলাকাছাড়া করার হুমকি দেয়। এঘটনায় কাজী মোস্তাফিজুর রহমান মাসুুুুুমের প্রতি সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে সর্বস্তরের মানুষ ক্ষুব্ধ । আপনজন যখন মানুষের বিপদে পাশে দাঁড়ায় তখন চাচাতভাই বেদখল করেছে তারই জমি । অপরদিকে পাশে দাঁড়িয়েছে সাংবাদিক শাকিল । অসহায় এতিম প্রতিবন্ধী কাজী মোবারকের খাওয়া দাওয়ার ব্যবস্থা করেছে সাংবাদিক শাকিল । কাজী মোবারক জানায়, বেদখল করা আমি আমার পৈত্রিক ১২ কাঠা জমি বুঝে চাই । বেদখলদার কাজী মোস্তাফিজুর রহমান মাসুম আমাকে হুমকি দিয়ে বলে, বাড়িতে গেলে আমাকে মেরে নদীতে ভাসিয়ে দিবে । জমির পাশাপাশি আমি আমার জীবনের নিরাপত্তাও চাই । আমি প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাত চাই । প্রধানমন্ত্রীর মাধ্যমেই প্রতিকার চাই ।


Comments are closed.

© All rights reserved © 2017 24ghontanews.com
Desing & Developed BY ThemeForest