শনিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২২, ০২:২৭ অপরাহ্ন

কয়েদি- হাজতিদের সংশোধনে মনোযোগী ময়মনসিংহ কেন্দ্রীয় কারাগার কর্তৃপক্ষ

কয়েদি- হাজতিদের সংশোধনে মনোযোগী ময়মনসিংহ কেন্দ্রীয় কারাগার কর্তৃপক্ষ

 খায়রুল আলম রফিক : ময়মনসিংহ কেন্দ্রীয় কারাগার কর্তৃপক্ষ কয়েদি- হাজতিদের কঠোর নিয়মের মাঝে রেখে সংশোধনে বেশি মনোযোগ দিয়ে কাজ করছেন । যা নিঃসন্দেহে আশাব্যঞ্জক । ময়মনসিংহ কেন্দ্রীয় কারাগার হবে একটি অনুকরণীয় মডেল কারাগার, সে লক্ষ্য নিয়ে কাজ করছেন, ডিআইজি ( প্রিজন) মো: জাহাঙ্গীর কবিরের তত্বাবধানে সিনিয়র জেল সুপার ইকবাল কবীর চৌধুরী, জেলার আবদুল্লাহ ইবনে তোফাজ্জল হোসেন খান, ডেপুটি জেলার জাহাঙ্গীর আলমসহ কারা প্রশাসন। জানাযায়, কারা বন্দীরা যাতে কোন রকমের সমস্যা ও তাদের অধিকার সঠিক ভাবে পায় সে লক্ষে কারা প্রশাসনকে সহযোগিতা করছে কারাগারের গোয়েন্দা ( পি আই ইউ) সদস্যগন। মানবিক বিষয়গুলোকে গুরুত্ব দিচ্ছেন তারা।

উন্নত করা হয়েছে খাবারের মান। বিশুদ্ধ খাবার পানি, চিকিৎসা সেবা নিশ্চিতকরণের পাশাপাশি পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা এবং মদাক নির্মূলকে সর্বাধিক গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে । পাশাপাশি শিক্ষা ক্ষেত্রেও ভূমিকা রাখছেন কারা কর্তৃপক্ষ । কারা স্কুলে মুর্খরাও পড়া-লেখা করছেন । প্রতিমাসেই কোরআন শিখে হফেজ হচ্ছেন অনেক কয়েদি- হাজতি । এছাড়াও প্রত্যেক বন্দি সপ্তাহে একদিন পরিবারের সাথে মোবাইলে কথা বলতে পারছেন । জানা যায়, ময়মনসিংহ কেন্দ্রীয় কারাগারে কয়েদি- হাজতির সংখ্যা প্রায় ১ হাজার ৮০০শ । এতে ঘুম থেকে শুরু করে চলাচলে সুবিধা পাচ্ছেন তারা। রাখিব নিরাপদ, দেখাবো আলোর পথ এ প্রতিপাদ্যে পরিচালিত ময়মনসিংহ কেন্দ্রীয় কারাগারে মাদকাসক্তদের চিকিৎসার আওতায় এনে সুস্থ করাও হচ্ছে । ডিআইজি প্রিজন ( প্রিজন) মো: জাহাঙ্গীর কবিরের তত্বাবধানে কয়েদি- হাজতিদের মানসিক অবস্থার পরিবর্তন আনতে সক্ষম হচ্ছে কারা কর্তৃপক্ষ । অনিয়মের বেড়াজাল ভেঙে ধীরে ধীরে ভাল পরিবেশ সৃষ্টি করায় নতুন রূপে ময়মনসিংহ কেন্দ্রীয় কারাগার। জেলখানার বাইরে-ভেতরে কঠোর অবস্থা। কয়েদি- হাজতির সংশোধনের জন্য কারাবিধি অনুসারে তৎপর কারা কর্তৃপক্ষ ।

মানসন্মত খাবারের পাশাপাশি কারাগারে শান্তি-শৃংখলা অটুট রাখতে কারা মনিটরিং, অসুস্থ বন্দিদের সুচিকিৎসার ব্যবস্থা, কারা ক্যান্টিনে ন্যায্যমূল্যের ব্যবস্থা, সার্বক্ষণিক তদারকি, বিশুদ্ধ পানীয় জল সরবরাহ, মানসম্মত খাবার পরিবেশন, পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা, সর্বোপরি কয়েদি-হাজতিদের মৌলিক চাহিদা পূরণে কাজ করছেন ডিআইজি ( প্রিজন) মো: জাহাঙ্গীর কবির । স্পর্শকাতর প্রতিষ্ঠান কারগারে মাদক প্রতিরোধে কঠোর তিনি। কয়েদি- হাজতিদের সুস্থ্য রাখতে শক্ত রুটির স্থলে তাদেরকে পরিবেশন করা হচ্ছে গরম খিচুরি, গরম ভাত, পায়েশ, রুটির ,খিচুরি, মাছ, মাংস ছাড়াও সুস্থ ও মাদকমুক্ত করে মানসিক অবস্থার পরিবর্তন করতে পরিবেশন করা হচ্ছে, পোলাও, মাংস, সাদা ভাত, আলুর দম, সালাদ, পান-সুপারি, মিষ্টি খাবার । কয়েদি-হাজতিরা এখন আগের তুলনায় অনেক ভালো আছেন। কারাগারের ভেতর বন্দিদের জন্য মনোরম পরিবেশ বিরাজ করছে। ময়মনসিংহ কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দি ছিলেন, এখন জামিনপ্রাপ্ত মাদক মামলার আসামি আলাল মিয়া জানান, এক বছর কারাগারে ছিলাম । নিয়মিত মাদক সেবন করতাম বাইরে। শরীর ভেঙে গিয়েছিল। কারা কর্তৃপক্ষের বন্ধুসুলভ আচরণ এবং ভাল মানের খাবার খেয়ে নিজেকে মাদকমুক্ত করতে সক্ষম হয়েছি।

কারাগারে মানবিক সুযোগ-সুবিধা পেয়েছি । কারাগারের বন্দি বর্তমানে জামিনপ্রাপ্ত খায়েশ আমাদের কন্ঠকে জানান, ৩টি চুরি মামলায় ৬ মাস কারাগারে ছিলাম । কারাগারে থাকার আগে বাসায় নিয়মিত খেতে পারতাম না । বাসার চেয়ে ভাল ছিলাম কারাগারে । একইরকম কথা বলেন, ২ মাস হাজতবাসকরা সিদ্দিকুর রহমানও । বন্দিদের বরাদ্দকৃত খাবার সুষ্ঠু বিতরণ, যথাযথ চিকিৎসা ও প্রাপ্য সুযোগ সুবিধা দিতে আপ্রান চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন । বন্দিরা কারা কর্তৃপক্ষের সংস্পর্শে এসে নীতি-নৈতিকতা ও আদর্শের চর্চা করে সংশোধিত হওয়ার পথ বেছে নিচ্ছেন । স্বাস্থ্যঝুঁকি ও নিরাপত্তহীনতা নেই । আছে বন্দিদের মুখে মুখে সুনাম ও সেবার কথা । কারাগার যেন সত্যিকারভাবে অপরাধী সংশোধন কেন্দ্র হয় আমরা সেলক্ষে কাজ করছি। কোন বন্দি যেন নিগ্রহের শিকার না হন নির্দেশনা দেয়া হয়েছে দৈনিক আমাদের কন্ঠকে জানান, ডিআইজি প্রিজন মো: জাহাঙ্গীর কবির।


Comments are closed.

© All rights reserved © 2017 24ghontanews.com
Desing & Developed BY ThemeForest