মঙ্গলবার, ১৮ মে ২০২১, ০২:২৭ অপরাহ্ন

ত্রিশালে ৫০ টি পরিবার সীমাহীন ভোগান্তিতে  

ত্রিশালে ৫০ টি পরিবার সীমাহীন ভোগান্তিতে  

খায়রুল আলম রফিক

ময়মনসিংহের ত্রিশাল উপজেলার ৮নং সাকুয়া ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের গন্ডখোলা গ্রামের যাতায়াতের একমাত্র রাস্তাটিতে বৃষ্টি হলেই দেখা দেয় জলাবদ্ধতা। পানিতে ডুবে যাওয়া রাস্তা দিয়ে বাধ্য হয়েই পার হন স্থানীয় লোকজন। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ত্রিশালের সর্বেচ্চ গুরুত্বপূর্ণ এই ওয়ার্ডটি উন্নয়নবঞ্চিত। ওয়ার্ডটিতে লাগেনি উন্নয়নের ছোঁয়া। একটি সরকারি স্কুল, একটি দাখিল মাদ্রাসাসহ শিক্ষা ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে যাতায়াতে জলাবদ্ধ রাস্তার সমস্যায় দুর্ভোগ আর সীমাহীন ভোগান্তিতে বসবাস করেন কমপক্ষে ৫০টি পরিবারসহ এলাকাবাসী। রাস্তায় দীর্ঘ সময় পানি জমে থাকার কারণে কাঁদা হয়। পানি আর কাঁদায় চরম ভোগান্তির মধ্যে গন্ডখোলা ওয়ার্ডেও বাসিন্দাসহ সাধারণ মানুষ চলাচল করতে পারেন না। দীর্ঘদিন থেকে এ ধরনের সমস্যা থাকলেও নাগরিক দুর্ভোগ নিরসনে কোনো কার্যকরী পদক্ষেপ নেননি সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বার। রাস্তায় জলাবদ্ধতার কারণে মানুষজন হালকা যানবাহন নিয়েও এগ্রামে ঢুকতে পারেন না।

সরেজমিনে দেখা গেছে, প্রচন্ড রৌদ্র আর ক্ষরতাপের পর ফসলের মাঠও শুকিয়ে গেছে । অথচ রাস্তাটির জলাবদ্ধতার কারণে রাস্তা ও তৎসংলগ্ন বাসাবাড়ির ভেতরে পানি রয়েছে। রাস্তা ডুবে রয়েছে। সেই রাস্তা দিয়ে লোকজন পানি মাড়িয়ে এপার-ওপার হচ্ছেন। গন্ডখোলা ওয়ার্ডে প্রবেশের মূল রাস্তাটি পানিতে ডুবে থাকায় স্বাস্থ্যঝুঁকি তৈরি হচ্ছে। ফিসারির কারণেই রাস্তার এই অবস্থা বলে মনে করেন অনেকেই ।

পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা ঠিক না থাকা এবং রাস্তা নিচু হওয়ায় সামান্য বৃষ্টিতেই জলাবদ্ধতা লেগে থাকে। এতে বসবাসে চরম ভোগান্তি পোহাতে হয় স্থানীয় জনসাধারণকে। একই গ্রামের বাসিন্দারা জানান, অন্তত ১৫- ২৫ বছর ধরে জলাবদ্ধতার এমন সমস্যা চলছে। অথচ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা এই জনদুর্ভোগ নিরসনে কোনো কার্যকর ভূমিকাই রাখছেন না। জলাবদ্ধতা দেখা দিলেও পানি ধীরগতিতে নামে। একই গ্রামের গৃহিণীরা জানান, বাড়িতে পানি ওঠায় রান্নাঘরও ডুবে যায়। তাই রান্নাবান্না করা যায় না। এ সময়টাতে শুকনা খাবার খেয়ে কোনো রকমে দিন অতিবাহিত করতে হয়।


Comments are closed.

© All rights reserved © 2017 24ghontanews.com
Desing & Developed BY ThemeForest