সোমবার, ১০ মে ২০২১, ০২:০৯ অপরাহ্ন

তদন্তের দায়িত্বে এডিশনাল এসপি কেন্দুয়া থানার বিতর্কিত ওসির বিরুদ্ধে মামলা

তদন্তের দায়িত্বে এডিশনাল এসপি কেন্দুয়া থানার বিতর্কিত ওসির বিরুদ্ধে মামলা

স্টাফ রিপোর্টার  : কেন্দুয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো: রাশেদুজ্জামানের বিরুদ্ধে বেপরোয়া কর্মকান্ড , ক্ষমতার অপব্যবহার , প্রাণনাশের হুমকি , গ্রেফতার বাণিজ্য নির্যাতনসহ বিভিন্ন অভিযোগে মামলা হয়েছে। নেত্রকোনার কেন্দুয়ায় উপজেলার ১১নং চিরাং ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা বাদী হয়ে এ মামলা দায়ের করেন। নেত্রকোনার আমলি আদালতে দায়ের করা এ মামলা প্রসঙ্গে নেত্রকোনা জেলার এডিশনাল এসপি (ক্রাইম) জুয়েল বলেন, আদালতের নির্দেশে মামলাটি (নং ৯ (৯)২০) নথিভূক্ত করা হয়। মামলাটি তদন্তের জন্য একজন এডিশনাল এসপিকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। অভিযোগের সত্যতা পেলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। জানতে চাইলে তিনি বলেন, ওসি এখনো স্বপদে বহাল রয়েছেন। জানা যায়, বাদী গোলাম মোস্তফা (৩৫) পিতা আবু তাহের সাং ছিলিমপুর , কেন্দুয়া নেত্রকোনা । আসামি কেন্দুয়া থানার অফিসার ইনচার্জ রাশেদুজ্জামান (৪৫) । বাদী গত ৩১ আগষ্ট আদালতে ওসির বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন । সিআর মামলা নং- ৯৩(১) ২০২০ । ৬ দিন আগে দায়ের করা অভিযোগ আদালত যাচাই- বাছাই শেষে ৭ সেপ্টেম্বর নেত্রকোনা জেলা পুলিশ সুপারকে মামলা আমলে নেয়ার নির্দেশ দেন বলে জানান আইনজীবি । মামলার বাদী গোলাম মোস্তফাকে সিভিল সার্জনের নিকট মেডিকেল রিপোর্ট করার জন্য আদালতের হাকিম নির্দেশ দেন । মামলার বাদীর অভিযোগ, ওসি রাশেদুজ্জামানের বেপরোয়া কর্মকান্ড , ক্ষমতার অপব্যবহার , প্রাণনাশের হুমকি , জুয়া খেলার অভিযোগে তাকে আটক করে থানায় এনে নির্যাতনসহ নানান কার্যক্রম পরিচলনা করছেন মর্মে, গত ২৮ এপ্রিল ২০২০ তারিখে আইজিপি, ডিআইজি ময়মনসিংহ রেঞ্জ এবং ১০ মে জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) বরাবর অভিযোগ দাখিল করেন । গোলাম মোস্তফা জানান , তাকেসহ আরও ৯জনকে জুয়া খেলার অভিযোগে ওসি রাশেদুজ্জামান আটক করে থানায় আনে । ঐ রাতে ওসি তাকে রাতভর অকথ্য নির্যাতন ও বেধরক পেটায় । প্রথমে থানার ভেতর আলাদা একটি কক্ষের টেবিলে হাতপা দড়ি দিয়ে বেঁধে শুইয়ে রাখে। ওসি তাকে বলে, আজকে তোকে পাইছি । আজকে তোকে উচিত শিক্ষা দেব। আমার বিরুদ্ধে আইজিপির কাছে অভিযোগ করেছিস। তোকে সাধ মিটিয়ে দেব। দেখি তোর কোন বাবা আছে তোকে উদ্ধার করে। শরীরের বিভিন্নস্থানে আঘাত করে। আর বলে, বল তোর বাবা ভাইস চেয়ারম্যান কই। তোর বাবাকে ডাক দে। এলোপাতাড়ি পেটিয়ে জখম ও অকথ্য নির্যাতন করে । প্রসঙ্গত, কেন্দুয়ায় রোজীনা আক্তার নামের এক বালিকাকে ধর্ষণের শিকার হন। থানায় অভিযোগ করেন । কেন্দুয়া থানায় দীর্ঘ সময় অতিবাহিত হলেও আজো মামলা নেননি ওসি রাশেদুজ্জামান। এরকম অনেক অভিযোগ উঠেছে ওসি রাশেদুজ্জামানের বিরুদ্ধে।


Comments are closed.

© All rights reserved © 2017 24ghontanews.com
Desing & Developed BY ThemeForest