বুধবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২০, ০৬:০৭ অপরাহ্ন

এতিম শিশুদের মুখে খাবার তুলে দেন ডিবির ওসি

এতিম শিশুদের মুখে খাবার তুলে দেন ডিবির ওসি

সোহেল রানা :  ময়মনসিংহ করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব কিছুটা হলেও কমে এসেছে আমাদের দেশে। স্কুল-কলেজ বন্ধ থাকলেও মসজিদ, মাদ্রাসা, এতিমখানা গুলো খুলে দিয়েছে সরকার! লকডাউন কেটে যাওয়ার পরপরই,ময়মনসিংহ জেলা পুলিশের মানবিক দৃষ্টি ছুয়ে দিল, এতিমখানার কোমলমতি শিশুদের উপর। তাদের মুখে হাসি ফুটাতে, ময়মনসিংহ জেলা পুলিশের সার্বিক সহযোগিতায়,এতিম শিশুদের মাঝে মাক্স বিতরণ,খাবার পরিবেশন ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।
মসজিদ,মাদ্রাসা গুলোতে বিভিন্ন ফান্ড থাকায় প্রতিষ্ঠানের খরচ জোগাতে তেমন একটা বেগ পেতে হয়না। কিন্তু এতিমখানাগুলোতে তুলনামূলক কম অনুদান থাকায় প্রতিষ্ঠান খরচ যোগাতে বড়ই হিমশিম খেতে হয় কর্তৃপক্ষের। সেখানকার শিক্ষার্থীদের কোনরকম দু’বেলা দু’মুঠো ডাল – ভাত খেয়ে দিন যাপন করে। আমরা প্রতিনিয়ত ভালোমন্দ খেয়ে থাকলেও, এতিম শিশুদের ক্ষেত্রে ভিন্ন! ভাল খাবারের দেখা মেলে মাসে দু’একবার! সেই সকল এতিম শিশুদের মুখে হাসি ফুটাতে, ময়মনসিংহ জেলা পুলিশের মানবিক এসপি মোহাঃ আহমার উজ্জামন, পিপিএম (সেবা) মহোদয়ের, মানবতার প্রখর দৃষ্টি ছুয়ে দিলো গ্রামের প্রত্যন্ত অঞ্চলে অবস্থিত এতিমখানা গুলোর দিকে।
এসপি মহোদয়ের মানবিক দৃষ্টিভঙ্গির প্রতিফলন ঘটাতে, প্রত্যন্ত অঞ্চলে অবস্থিত এতিমখানা গুলোর খোঁজখবর নেয়ার দায়িত্ব দেয়া হয় জেলা গোয়েন্দা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ,শাহ কামাল আকন্দের উপর। ময়মনসিংহ জেলা পুলিশের সার্বিক সহযোগিতায় এবং ডিবি’র ওসির তত্ত্বাবধায়নে (৩ সেপ্টেম্বর) বৃহস্পতিবার বাদ মাগরিব,ময়মনসিংহ নগরীর মহজমপুর হাফিজিয়া এতিমখানায় ১২০ জন শিক্ষার্থীদের মাঝে মাক্স বিতরণ,খাবার পরিবেশনা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়।
এতিমখানার ইমাম সাহেবের সঞ্চালনায়, অনুষ্ঠানের সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে ডিবি’র ওসি বলেন:- ময়মনসিংহ জেলা পুলিশের মানবিক এসপি মহোদয় আমাকে ফোন করে বললেন,লকডাউন তো শেষ মাদ্রাসা ও এতিমখানা গুলোতে বর্তমানে খোলা, আমরা প্রতিনিয়ত ভালো-মন্দ খেয়ে থাকি, কিন্তু ওই এতিম শিশু গুলো কত অবহেলা, অনাদরে দিন কাটাচ্ছে। কোনরকম খেয়ে-পড়ে বেঁচে থাকলেও ভালো-মন্দের দেখা পায় না তারা। তাই গ্রামের প্রত্যন্ত অঞ্চলে অবস্থিত অবহেলিত এতিমখানাগুলোর খোঁজ নিয়ে, খাবার দেওয়া দরকার। স্যারের মানবিক জ্ঞানের একান্ত ফসল আজকের এই অনুষ্ঠান। এতিমদের কথা কু’রআনে বহুবার এসেছে, কারণ আল্লাহর কাছে এতিমদের গুরুত্ব অনেক বেশি। আমরা কয়জন জানি? আমাদের এলাকায় এতিম কারা? আশপাশে থাকা,ছেড়া কাপড় পড়া মলিন মুখের অসহায় দেখতে শিশুটার খবর নেওয়ার প্রয়োজন পর্যন্ত অনুভব করি না। যারা এতিম তারাই শুধু এতিমের মর্ম টা বুঝতে পারে। তাই এতিমদের অবহেলা করা নায়। তাদেরকে সুনিপুণ হাতে গড়ে তোলা,আমাদের সকলের দায়িত্ব ও কর্তব্য। আজকে যারা এই প্রতিষ্ঠানের লেখাপড়া করছে, তারাই একদিন হয়তো কোন মসজিদ,মাদ্রাসায় শিক্ষকতা মাধ্যমে নিজের পায়ে দাড়াতে শিখবে। শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে তিনি আরো বলেন, তোমরা সর্বদাই শিক্ষককে মর্যাদা এবং সম্মান দিবে পাশাপাশি ভালো করে মনোযোগের সহিত লেখাপড়া করবে! যাতে করে তোমরা দেশ ও জাতির কল্যাণে নিজেদের আত্মনিয়োগ করতে পারো।
পরিশেষে বলব, বর্তমানে কোরনা ভাইরাস ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছে দেশ। এ সময় আমাদের সকলের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা উচিত। সেই সাথে অবশ্যই মাক্স পরিধান করা অত্যাবশ্যক। সে সময় আরও উপস্থিত ছিলেন,ম্যানেজিং কমিটির সদস্যগণ, শিক্ষক, কর্মকর্তা -কর্মচারী, শিক্ষার্থীবৃন্দ সহ গ্রামের বিভি ন্ন পর্যায়ের ব্যক্তিবর্গ ও ওলামায়ে কেরামগণ।


Comments are closed.

© All rights reserved © 2017 24ghontanews.com
Desing & Developed BY ThemeForest