শনিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২০, ০৮:১৬ অপরাহ্ন

শেরপুরে টানা বর্ষনে পানি বৃদ্ধিতে সৃষ্ট বণ্যায় ফসলি জমির ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি

শেরপুরে টানা বর্ষনে পানি বৃদ্ধিতে সৃষ্ট বণ্যায় ফসলি জমির ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি

আমিনুল ইসলাম রাজু : শেরপুরে কয়েকদিনের টানা বৃষ্টিতে ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে সদর উপজেলার ধলা ইউনিয়নের প্রায় ১০ টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এতে করে হঠাৎ পানি বৃদ্ধিতে সৃষ্ট বণ্যায় গ্রামগুলোর সদ্য রোপণ করা আমন ক্ষেত ও শীতকালীন সবজি পানিতে তলিয়ে গেছে। স্থানীয় কৃষক আইজউদ্দি বলেন, করোনায় অনেকদিন থেকে কর্মহীন হয়ে পরে আছি। অনেক ধার দেনা করে কয়েক বিঘা জমিতে আমন ধান রোপন করেছি। কিন্তু নতুন করে পাহাড়ী ঢলের বন্যায় সব তলিয়ে গেছে। সামনের দিনে হয়তো না খেয়ে দিন কাটাতে হবে। স্থানীয় আরেকজন কৃষক মিনাল বলেন, অনেক আশা নিয়ে শীতকালীন সবজি লাগিয়েছিলাম। কিন্তু টানা দ্বিতীয় বন্যায় সব আবাদ তলিয়ে গেছে। পানি কিছুদিনের মধ্যে না নেমে গেলে সব সবজি গাছ তলিয়ে যাবে। তাই হুইপ আতিক এমপির কাছে আমরা ধলা ইয়নিয়নবাসীর দাবি, যেন তিনি সরকারী ভাবে কিছু আর্থিক সহায়তার ব্যবস্থা করে দেন। এ বিষয়ে ধলা ইউপি চেয়ারম্যান রইছ উদ্দিন ও এলাকাবাসী সূত্র জানায়, গত সপ্তাহে পাহাড়ি ঢলের পানির তোড়ে সদর উপজেলার ৫নং ধলা ইউনিয়নের পাঞ্জরভাঙ্গা পূর্বপাড়া, পাঞ্জরভাঙ্গা গারোভিটা থেকে রসুলপুর বাজার, ভৌলি চান্দেরনগর, নয়াপাড়া মুসলিম পাড়া, মধ্যপাড়া, সাগরপাড়া, উলাকান্দাসহ আরো বেশ কয়টি গ্রাম প্লাবিত হয়ে সদ্য আবাদি আমন ধানের চারা ও শীলকালীন সবজি হিসেবে বেগুন, ডাটা, মরিচ, জিঙ্গা, শসাসহ অন্যান্য পণ্য সামগ্রী পুরোটাই পানির নিচে তলিয়ে যায়। এখন পর্যন্ত সরকারি কিংবা স্থানীয় জনপ্রতিনিধির কোন সহযোগিতা না আসায় কৃষকের মাথায় হাত। একদিকে করোনা অন্যদিকে বণ্যা এমন দুর্যোগকালীন সময়ে কর্মহীন কৃষকদের সর্বশেষ সম্ভল হিসেবে ব্যুরো ধান ছিলো এমন সময় টানা ২য় বারের মত বণ্যা হওয়ায় তাও শেষ হয়ে গেছে। তাই কৃষকদের পক্ষ থেকে সরকারের কাছে সাহায্য সহযোগিতার জুরালো আবেদন জানিয়েছেন স্থানীয় এই জনপ্রতিনিধি।


Comments are closed.

© All rights reserved © 2017 24ghontanews.com
Desing & Developed BY ThemeForest