শনিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২০, ০৫:০২ অপরাহ্ন

রাষ্ট্রপতিকে নিয়ে অসত্য বক্তব্য, সংসদ এলাকায় নিষিদ্ধ আতর আলী

রাষ্ট্রপতিকে নিয়ে অসত্য বক্তব্য, সংসদ এলাকায় নিষিদ্ধ আতর আলী

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদকে নিয়ে অসত্য বক্তব্য দেয়ায় সংসদের চতুর্থ শ্রেণির কর্মকর্তা সমিতির সাবেক সভাপতি মো. আতর আলীকে সংসদ এলাকায় নিষিদ্ধ করা হয়েছে। একই সাথে তাকে কারণ দর্শানো নোটিশও দেয়া হয়েছে।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদতবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সরকারি চাকরিজীবী হয়েও রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ পর্যায়ের ব্যক্তিত্বকে নিয়ে অসত্য বক্তব্য দেয়ায় এ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। আতর আলী নিজেও কারণ দর্শানোর নোটিশ এবং সংসদ এলাকায় নিষিদ্ধ করার বিষয়টি স্বীকার করেছেন। ইতোমধ্যে শোকজের জবাব দিয়েছেন বলেও জানান তিনি।

৬ সেপ্টেম্বর সংসদের সিনিয়র সহকারী সচিব মোহাম্মদ খালেদুর রহমান স্বাক্ষরিত চিঠিতে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয়। সেখানে লেখা হয়, আপনি মোহাম্মদ আতর আলী গত ১৭ আগস্ট সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদতবার্ষিকী উপলক্ষে ভার্চুয়াল পদ্ধতিতে বাংলাদেশ জাতীয় সংসদ সচিবালয় আয়োজিত আলোচনা সভা দোয়া ও মোনাজাত অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রপতি সম্পর্কে অসত্য বক্তব্য দেন। যেহেতু গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি রাষ্ট্রের সকল ব্যক্তির ঊর্ধ্বে স্থান লাভ করেন, কোনো ব্যক্তির পক্ষে মহামান্য রাষ্ট্রপতি সম্পর্কে প্রকাশ্যে কোনো অসত্য বক্তব্য প্রদান দেশের সংবিধান পরিপন্থী।

যেহেতু আপনি মহামান্য রাষ্ট্রপতি সম্পর্কে অসত্য বক্তব্য প্রদান করেছেন বা একজন সরকারি কর্মচারী হিসেবে অনুচিত ও যেহেতু আপনার উপরোক্ত আচরণ একজন সরকারি কর্মচারীর জন্য অশোভনীয় আচরণ এবং সরকারি কর্মচারী আচরণ বিধিমালা পরিপন্থী, যা জাতীয় সংসদ সচিবালয় কর্মকর্তা-কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধিমালা ২০০৫ এর ৩ এর ক মোতাবেক অসদাচরণ হিসেবে গণ্য যেহেতু আপনাকে জাতীয় সংসদ সচিবালয় কর্মচারী কর্মকর্তা ও কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধিমালা ২০০৫ এর ৩ (ক) দায়ে অভিযুক্ত করে কেন উক্ত বিধিমালার অধীনে যথোপযুক্ত দণ্ড প্রদান করা হবে না সে বিষয়ে এ নোটিশ প্রাপ্তির তিন কার্যদিবসের মধ্যে কারণ দর্শানোর জন্য নির্দেশক্রমে অনুরোধ করা হলো।

এ বিষয়ে মো. আতর আলী বলেন, ওই বক্তব্য দেয়ার কারণে আমাকে সংসদ এলাকায় নিষিদ্ধ করা হয়েছে। আমি কী আর করবো? কপালে যে দুর্ভোগ আছে তাই হবে। কারণ দর্শানোর নোটিশ পাওয়ার পরদিনই আমি জবাব দিয়েছি।

সংসদ সচিবালয় সূত্রে জানা গেছে, গত ১৭ আগস্ট সংসদের শপথ কক্ষে জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী ভার্চুয়ালি অংশ নেন। কর্মচারীদের পক্ষ থেকে আতর আলী বক্তব্য রাখেন। এসময় তিনি বলেন, বর্তমান রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ স্পিকার থাকার সময় এ ধরনের অনুষ্ঠান হয়নি। এছাড়া তিনি আরও কিছু নেতিবাচক বক্তব্য রাখেন।

আতর আলী চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী হয়েও সংসদ সচিবালয়ে খুবই প্রভাবশালী। তিনি সংসদ সচিবালয়ের সংসদ নেতার দপ্তরে কাজ করেন।


Comments are closed.

© All rights reserved © 2017 24ghontanews.com
Desing & Developed BY ThemeForest