শনিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২১, ০৬:৫৪ পূর্বাহ্ন

মেজর সিনহা হত্যাকাণ্ডের সর্বশেষ তদন্ত প্রতিবেদন উপস্থাপন করেছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী

মেজর সিনহা হত্যাকাণ্ডের সর্বশেষ তদন্ত প্রতিবেদন উপস্থাপন করেছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী

ডেস্ক নিউজ :

কক্সবাজারের টেকনাফে মেজর (অব.) সিনহা মো. রাশেদ খান হত্যাকাণ্ডের সর্বশেষ তদন্ত প্রতিবেদন উপস্থাপন করেছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী। সেই প্রতিবেদন অনুযায়ী, গুলি করার পরও কিছুক্ষণ বেঁচে ছিলেন তিনি। টেকনাফ মডেল থানার বরখাস্ত হওয়া ওসি প্রদীপ কুমার দাশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে অত্যন্ত নির্মম ও অমানবিকভাবে পা দিয়ে চেপে ধরে মাটিতে লুটিয়ে পড়া মেজর (অব.) সিনহার মৃত্যু নিশ্চিত করেন।

সিনহাকে বহনকারী পিকআপ হাসপাতালে পৌঁছানোর পেছনে ও দায়ী ব্যক্তিদের দুরভিসন্ধিমূলক অপচেষ্টা ছিল বলে প্রতীয়মান হয় বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।

বুধবার (৭ অক্টোবর) সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির বৈঠকে এই প্রতিবেদন উপস্থান করা হয়। বৈঠক শেষে কমিটির সভাপতি মেজর জেনারেল (অব.) মোহাম্মদ সুবিদ আলী ভূঁইয়া প্রতিবেদন উত্থাপনের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন, মেজর (অব.) সিনহা মো. রাশেদ খান হত্যাকাণ্ডের একটি প্রতিবেদন দিয়েছে সেনাবাহিনী। কমিটির এই হত্যাকাণ্ডের বিচার দ্রুত শেষ করার তাগিদ দিয়েছে।

প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, গত ৩১ জুলাই আনুমানিক ৯টা ২৫ মিনিটে টেকনাফ থানার আওতাধীন মেরিন ড্রাইভ এলাকায় শামলাপুর পুলিশ চেকপোস্টে ইন্সপেক্টর লিয়াকত আলীর গুলিতে মেজর (অব.) সিনহা মো. রাশেদ খান নিহত হন। প্রাথমিক তথ্য বিবরণীতে জানা যায়, গত ৩ জুলাই ঢাকা হতে স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটির ফিল্ম অ্যান্ড মিডিয়া বিভাগের ৩ জন শিক্ষার্থীসহ ‘জাস্ট গো’ নামের একটি ইউটিউব চ্যানেলের জন্য ট্রাভেল ভিডিও তৈরির জন্য কক্সবাজার আসেন। এবং নীলিমা কটেজ নামক একটি রিসোর্টে অবস্থান করে একমাস ধরে কক্সবাজারের বিভিন্ন স্থানে শুটিং করেন।

গত ৩১ জুলাই রাতে শুটিং শেষে সিনহা মো. রাশেদ খান সঙ্গী সাহেজুল ইসলাম সিফাতকে নিয়ে মারিশবুনিয়া পাহাড় থেকে নেমে প্রাইভেটকারে মেরিন ড্রাইভ দিয়ে কক্সবাজারের উদ্দেশ্যে রওনা করেন। পথিমধ্যে শামলাপুরের আগে বিজিবি চেকপোস্টে তাদেরকে তল্লাশি করার জন্য থামানো হয় এবং পরিচয় নেয়ার পর ছেড়ে দেয়া হয়।


Comments are closed.

© All rights reserved © 2017 24ghontanews.com
Desing & Developed BY ThemeForest