বৃহস্পতিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২০, ০৯:৪৭ অপরাহ্ন

‘ফিরছেন না’ পি কে হালদার

‘ফিরছেন না’ পি কে হালদার

নিজস্ব প্রতিবেদক: প্রায় তিন হাজার ৬০০ কোটি টাকা পাচারের মামলায় নিরাপত্তা চেয়ে আদালতের হেফাজতে দেশে ফেরার ইচ্ছার কথা জানালেও পি কে হালদার সিদ্ধান্ত বদলেছেন বলে আইনজীবীরা জানিয়েছেন। আগামীকাল তার দেশে ফেরার কথা থাকলেও শেষ পর্যন্ত তিনি আসছেন না। ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স সার্ভিস লিমিটেডের (আইএলএফএসএল) আইনজীবী ই-মেইল করে অ্যাটর্নি জেনারেলেরে কার্যালয় ও দুর্নীতি দমন কমিশনকে জানিয়েছে পি কে হালদার এখন দেশে ফিরছেন না।শনিবার (২৪ অক্টোবর) বিকেলে দুদকের আইনজীবী খুরশিদ আলম খান বলেন, ‘ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স সার্ভিস লিমিটেডের আইনজীবী মাহফুজুর রহমান মিলন আমাকে জানিয়েছেন, পিকে হালদার অসুস্থজনিত কারণে আগামীকাল দেশে আসছেন না। ইমেইলের মাধ্যমে পিকে হালদার ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স সার্ভিস লিমিটেডের এমডিকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। সেই ইমেইল আমার কাছেও ফরওয়ার্ড করা হয়েছে।’প্রসঙ্গত, আগামীকাল রোববার (২৫ অক্টোবর) সকালে আমিরাত এয়ার লাইন্সের একটি বিমানে পিকে হালদারের দেশে আসার কথা ছিল।

এর আগে গত ২১ অক্টোবর প্রশান্ত কুমার হালদার (পিকে হালদার) দেশে ফেরার অনুমতি দিয়ে বিমানবন্দর থেকেই তাকে গ্রেপ্তারে আইনশৃঙখলা বাহিনীকে নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে দেশে ফিরে কারাগারে আইনের হেফাজতে থেকে যাতে পিকে হালদার পাওনাদারদের টাকা পরিশোধে সহযোগিতা করতে পারেন, সে বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেন আদালত।বিচারপতি মুহাম্মদ খুরশীদ আলম সরকারের একক হাইকোর্ট বেঞ্চ এই আদেশ দেন।আদালতে পিকে হালদারের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার মাহফুজুর রহমান মিলন। দুদকের পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট খুরশিদ আলম খান।এর আগে সেপ্টেম্বর মাসের প্রথম সপ্তাহে প্রশান্ত কুমার হালদার (পিকে হালদার) দেশে ফিরতে হাইকোর্টে আবেদন করেন। আবেদনে তার জীবনের নিরাপত্তাহীনতার কথা জানিয়ে আদালতের কাছে নিরাপত্তা চান।

গত ২১ জানুয়ারি প্রায় ৩ হাজার ৬০০ কোটি টাকা পাচার করার ঘটনায় ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স সার্ভিস লিমিটেডের পরিচালক প্রশান্ত কুমার হালদারসহ (পিকে হালদার) ১৯ জনের সব সম্পদ, ব্যাংক হিসাব জব্দ ও পাসসপোর্ট আটকানোর নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। অন্যরা হলেন, কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম নুরুল আলম, পরিচালক জহিরুল আলম, নাসিম আনোয়ার, বাসুদেব ব্যানার্জী, পাপিয়া ব্যানার্জী, মোমতাজ বেগম, নওশেরুলইসলাম, আনোয়ারুল কবির, প্রকৌশলী নরুজ্জামান, আবুল হাসেম, রাশেদুল হক, পি কে হালদারের মা লীলাবতী হালদার, স্ত্রী সুষ্মিতা সাহা, ভাই প্রিতুষ কুমার হালদার, চাচাতো ভাই অমিতাব অধিকারী, অভিজিৎ অধিকারী, ব্যাংক এশিয়ার সাবেক পরিচালক ইরফান উদ্দিন আহমেদ, পি কে হালদারের বন্ধু উজ্জ্বল কুমার নন্দী।ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স সার্ভিস লিমিটেডে বিনিয়োগকারী দুই জনের আবেদনের প্রেক্ষিতে এ আদেশ দেওয়া হয়।পি কে হালদার বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠানের দায়িত্বে থেকে লোপাট করেছেন অন্তত সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকা। পি কে হালদার প্রথমে রিলায়েন্স ফাইন্যান্স এবং পরে এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকসহ (এমডি) বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করেছেন। এমন আরও কিছু প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে রয়েছে ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস, পিপলস লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস, এফএএস ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড ও বাংলাদেশ ইন্ডাস্ট্রিয়াল ফাইন্যান্স কোম্পানি (বিআইএফসি) ইত্যাদি। অভিযোগ রয়েছে, ওই সকল প্রতিষ্ঠানে গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন ও নতুন আরো কিছু কাগুজে প্রতিষ্ঠান তৈরির মাধ্যমে প্রায় ৩ হাজার ৬০০ কোটি টাকা আত্মসাত ও বিদেশে পাচার করেছেন পি কে হালদার। নিজেও পাড়ি জমিয়েছেন বিদেশে।ক্যাসিনো অভিযানের ধারাবাহিকতায় তার বিরুদ্ধে এরই মধ্যে প্রায় ২৭৫ কোটি টাকা অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ আনা হয়। এ ঘটনায় দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) সহকারী পরিচালক মামুনুর রশীদ বাদী হয়ে মামলা করেন। তবে মামলা করার আগেই লাপাত্তা হন পি কে হালদার।


Comments are closed.

© All rights reserved © 2017 24ghontanews.com
Desing & Developed BY ThemeForest