মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর ২০২০, ০৯:১২ অপরাহ্ন

ত্রিশালে যুবলীগ নেতা মনির হত্যাকান্ড ঘটনাস্থল পরিদর্শনে এসপি

ত্রিশালে যুবলীগ নেতা মনির হত্যাকান্ড ঘটনাস্থল পরিদর্শনে এসপি

মো: কামাল হোসেন,ময়মনসিংহ :
ময়মনসিংহের ত্রিশালে আলোচিত হত্যাকান্ড যুবলীগ নেতা মনিরুজ্জামান মনির । গত ৯ আগস্ট সন্ত্রাসীরা তাকে নির্মমভাবে হত্যা করে । এঘটনায় নিহত মনিরুজ্জামান মনিরের স্ত্রী সালমা আক্তার বাদী হয়ে ত্রিশাল থানায় ১১ জনকে আসামি করে হত্যা মামলা দায়ের করেন । ত্রিশাল থানা পুলিশ অভিযান পরিচালনা করে তাৎক্ষনিক ৬ জন আসামিকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয় । গ্রেপ্তারকৃত আসামিদের মধ্যে বর্তমানে ২জন জামিনে আছে । বাকী ৪ জন কারাগারে । বাকী ৫ জন আসামি এখনও পলাতক আছে ।
যুবলীগ নেতা মনির হত্যাকান্ড আলোচিত ঘটনা হওয়ায় থানা থেকে মামলাটি সিআইডিতে হস্তান্তরিত হয় । মামলা হস্তান্তরের দেড় মাস অতিবাহিত হলেও সিআইডি পুলিশ আসামি গ্রেপ্তারে ব্যর্থ হয় ।
এরই মধ্যে গত বুধবার ত্রিশালের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মোস্তাফিজুর রহমান নিহতের পরিবারের বাড়িতে এসে খোঁজ খবর নেন । মামলার বর্তমান অবস্থা বিষয়ে অবগত হন ।
এরই ধারাবাহিকতায় সিআইডির বিশেষ পুলিশ সুপার ড. আল মামুনুল আনসারি বৃহস্পতিবার ঘটনাস্থলে যান এবং মামলার বাদী, স্বাক্ষী এবং এলাকাবাসীর সাথে কথা বলেন । এসময় উপস্থিত স্থানীয় সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের সন্মুখিন হন সিআইডির এই কর্মকর্তা । মামলা হস্তান্তরের দেড় মাস অতিবাহিত হলেও আসামি গ্রেপ্তার হয়নি এমন প্রশ্নের জবাবে সিআইডির বিশেষ পুলিশ সুপার বলেন, তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় আসামি গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে । অনেক সাংবাদিক ঘটননাস্থলে সমবেত হয়েছে দেখে রাগান্বিত হয়ে সিআইডি কর্মকর্তা বলেন, আমি সবার কথা শুনি কিন্তু মানি না । একথা শুনে সাংবাদিক কামাল হোসেন বলেন, থানা পুলিশ থেকে সিআইডিতে মামলা হস্তান্তরের পর কোন আসামি গ্রেপ্তার না হওয়ায় সিআইডির ব্যর্থতা কিনা প্রশ্নের উত্তরে বিশেষ পুলিশ সুপার বলেন, আসামিরা আমাদের কব্জায় আছে । কোন জেলায় আছে সেটা জানি । বলা যাবে না । আমরা বেশিরভাগ চাঞ্চল্যকর মামলার আসামি গ্রেপ্তার করি । এটাও করবো ।
নিহত মনিরের স্ত্রী সালমা আক্তার জানান, আমার শেষ ভরষা সিআইডি পুলিশ । আমি শুনেছি তারা ভাল কাজ করেন । আমার স্বামী হত্যা মামলার আসামি না ধরায় বুঝছি যে তারা ভাল কাজ করে না । সালমা বলেন, আমার স্বামী যুবলীগ নেতা চিলেন । সৎ ও নামাজি মানুষ ছিলেন । আমার মনে হয়না তিনি খুন হয়েছেন । আমার এবং সন্তানদের চোখের সামনে তাকে খুন করা হয় । এটা মেনে নিতে পারছি না । মনির নিহতের পর ত্রিশালের পৌর মেয়র আলহাজ আনিছুজ্জামান আনিছসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ আমাদের সান্তনা দিতে বাড়িতে এসেছেন । খোঁজ খবর রাখছেন । আমি ন্যায় বিচার চাই । আসামিদের ফাঁসি চাই ।


Comments are closed.

© All rights reserved © 2017 24ghontanews.com
Desing & Developed BY ThemeForest